Thursday 9th of December 07:49:50am

Cucumber Health Benefits Bangla-শসা খাওয়ার ১৭ স্বাস্থ্য উপকারিতা

Health Benefits of Eating Cucumber


শসা খাওয়ার ১৭ স্বাস্থ্য উপকারিতা


শসা যদিও সাধারণত একটি সবজি বলে মনে করা হয়, শসা আসলে একটি ফল। এটি উপকারী  উচ্চ পুষ্টির অধিকারী, সেইসাথে কিছু উদ্ভিদ যৌগ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা  চিকিত্সা এবং এমনকি রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।


এছাড়াও, শসার ক্যালোরি কম এবং এতে প্রচুর পরিমাণে পানি এবং দ্রবণীয় ফাইবার রয়েছে, যা তাদের হাইড্রেশন উন্নীত করতে এবং ওজন কমাতে সহায়তার জন্য আদর্শ করে তোলে।


এই নিবন্ধটি শসা খাওয়ার শীর্ষ স্বাস্থ্য উপকারিতার কিছু ঘনিষ্ঠভাবে দেখে।


১. এতে পুষ্টিগুণ বেশি

শসায় ক্যালোরি কম কিন্তু অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন এবং মিনারেল রয়েছে।


একটি ১১-আউন্স (৩০০-গ্রাম) খোসা ছাড়ানো, কাঁচা শসায় নিম্নলিখিতগুলি উপাদান রয়েছে:


ক্যালরি: ৪৫

চর্বি: 0 গ্রাম

কার্বোহাইড্রেট: ১১ গ্রাম

প্রোটিন: ২ গ্রাম

ফাইবার: ২ গ্রাম

ভিটামিন সি: RDI এর ১৪%

ভিটামিন কে: RDI এর ৬২%

ম্যাগনেসিয়াম: RDI এর ১০%

পটাসিয়াম: RDI এর ১৩%

ম্যাঙ্গানিজ: RDI এর ১২%

শশার পানির পরিমাণ বেশি।  শসা প্রায় ৯৬% পানি দিয়ে গঠিত।


তাদের পুষ্টির পরিমাণ সর্বাধিক করার জন্য, শসা খোসা ছাড়াই খাওয়া উচিত। এগুলি খোসা ফাইবারের পরিমাণ, সেইসাথে কিছু ভিটামিন এবং খনিজ  হ্রাস করে।


সারসংক্ষেপ:

শসায় ক্যালোরি কম কিন্তু পানিতে বেশি এবং বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন এবং খনিজ। খোসার সাথে শসা খেলে সর্বোচ্চ পরিমাণে পুষ্টি পাওয়া যায়।


২. এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হল অণু যা অক্সিডেশনকে বাধা দেয়, একটি রাসায়নিক বিক্রিয়া যা অবাধ ইলেকট্রনগুলির সাথে অত্যন্ত প্রতিক্রিয়াশীল পরমাণু গঠন করে যা ফ্রি র‍্যাডিক্যাল নামে পরিচিত। এই ক্ষতিকারক ফ্রি র‍্যাডিক্যালের সঞ্চয়ের ফলে বিভিন্ন ধরনের দীর্ঘস্থায়ী রোগ হতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, ফ্রি র‍্যাডিক্যাল দ্বারা সৃষ্ট অক্সিডেটিভ স্ট্রেস ক্যান্সার এবং হার্ট, ফুসফুস এবং অটোইমিউন রোগের সাথে যুক্ত হয়েছে। শসা সহ ফল এবং সবজি, বিশেষ করে উপকারী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ যা এই অবস্থার ঝুঁকি কমাতে পারে।



সারসংক্ষেপ:

শশায় রয়েছে ফ্লেভোনয়েডস এবং ট্যানিনসহ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ক্ষতিকারক ফ্রি র‍্যাডিকেল জমা হওয়া রোধ করে এবং দীর্ঘস্থায়ী রোগের ঝুঁকি কমাতে পারে।



৩. এটি হাইড্রেশন প্রচার করে

আপনার শরীরের ক্রিয়াকলাপের জন্য পানি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ এবং বর্জ্য পণ্য এবং পুষ্টির পরিবহনের মতো প্রক্রিয়ায় জড়িত। প্রকৃতপক্ষে, সঠিক হাইড্রেশন শারীরিক কর্মক্ষমতা থেকে বিপাক পর্যন্ত সবকিছুকে প্রভাবিত করতে পারে। যখন আপনি আপনার তরল চাহিদার অধিকাংশই পানীয় বা অন্যান্য তরল পদার্থ দ্বারা পূরণ করেন, তখন কিছু মানুষ খাদ্য থেকে তাদের মোট পানির ৪০% পর্যন্ত পেতে পারে। ফল এবং সবজি, বিশেষ করে, আপনার খাদ্যে পানির একটি ভাল উৎস হতে পারে।



সারসংক্ষেপ:

শসা প্রায় ৯৬% পানির সমন্বয়ে গঠিত, যা হাইড্রেশন বৃদ্ধি করতে পারে এবং আপনার দৈনন্দিন তরলের চাহিদা পূরণে সাহায্য করতে পারে।



৪. এটি ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে

শসা আপনাকে বিভিন্ন উপায়ে ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে। প্রথমত, তাদের ক্যালোরি কম। প্রতিটি এক-কাপ (১০৪-গ্রাম) পরিবেশন মাত্র ১৬ ক্যালোরি থাকে, যখন একটি সম্পূর্ণ ১১-আউন্স (৩০০-গ্রাম) শসায় থাকে মাত্র ৪৫ ক্যালরি।


শসা সালাদ, স্যান্ডউইচ এবং সাইড ডিশে সতেজতা এবং স্বাদ যোগ করতে পারে এবং উচ্চ ক্যালোরি বিকল্পের প্রতিস্থাপন হিসাবেও ব্যবহার করা যেতে পারে।


তদুপরি, শসার উচ্চ জলের পরিমাণ ওজন কমাতেও সহায়তা করতে পারে।



সারসংক্ষেপ:

শসা কম ক্যালোরি, পানিতে বেশি এবং অনেক খাবারের জন্য কম ক্যালোরি টপিং হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এই সব ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে।


৫. শসা রক্তে শর্করা কমিয়ে দিতে পারে

বেশ কয়েকটি প্রাণী এবং টেস্ট-টিউব গবেষণায় দেখা গেছে যে শসা রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে এবং ডায়াবেটিসের কিছু জটিলতা রোধ করতে সাহায্য করতে পারে।



সারসংক্ষেপ:

টেস্ট-টিউব এবং প্রাণী গবেষণায় দেখা গেছে যে শসা রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে এবং ডায়াবেটিস-সংক্রান্ত জটিলতা রোধ করতে সাহায্য করতে পারে, যদিও অতিরিক্ত গবেষণার প্রয়োজন।



৬. এটি কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য

শসায় পানির উচ্চ উপাদান আমাদের মল নরম করে, কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করে এবং আমাদের মলত্যাগকে নিয়মিত রাখে।

শসা খাওয়া নিয়মিত মলত্যাগকে সমর্থন করতে সাহায্য করতে পারে। কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য ডিহাইড্রেশন একটি প্রধান ঝুঁকির কারণ, এটি আপনার পানির ভারসাম্য পরিবর্তন করতে পারে এবং মলের পথকে কঠিন করে তুলতে পারে। শসায় পানির পরিমাণ বেশি এবং হাইড্রেশন বাড়ায়। হাইড্রেটেড থাকা মলের স্থায়িত্ব উন্নত করতে পারে, কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে পারে এবং নিয়মিততা বজায় রাখতে সহায়তা করে। তাছাড়া, শসায় ফাইবার থাকে, যা অন্ত্রের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।


বিশেষ করে পেকটিন, শসায় পাওয়া দ্রবণীয় ফাইবারের ধরন, অন্ত্রের চলাচলের ফ্রিকোয়েন্সি বাড়াতে সাহায্য করে।


সারসংক্ষেপ:

শসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং পানি, যা উভয়ই কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করতে এবং নিয়মিততা বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারে।



৭. আপনার ডায়েটে যোগ করা সহজ

একটি স্বতন্ত্র খাস্তা এবং সতেজ স্বাদযুক্ত হালকা, শসাগুলি সাধারণত সালাদ থেকে স্যান্ডউইচ পর্যন্ত সবকিছুতে তাজা বা আচার উপভোগ করা হয়।

শসাগুলি প্রায়শই কম ক্যালোরিযুক্ত স্ন্যাক হিসাবে কাঁচা খাওয়া হয় বা কিছুটা বেশি স্বাদ যোগ করার জন্য , অলিভ অয়েল, লবণ বা সালাদ ড্রেসিংয়ের সাথে যুক্ত করা যেতে পারে।



সারসংক্ষেপ:

শসা টাটকা বা আচার খাওয়া যেতে পারে। এগুলি কম ক্যালোরিযুক্ত জলখাবার হিসাবে উপভোগ করা যেতে পারে বা বিভিন্ন খাবারে স্বাদ যোগ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।



৮.রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে:

শসা পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং খাদ্যতালিকাগত ফাইবারের ভালো উৎস। এই পুষ্টিগুলি রক্তচাপ কমাতে পরিচিত, এইভাবে হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে। গবেষণায় এটাও প্রমাণিত হয়েছে যে, উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে শসার রস নিয়মিত খাওয়া রক্তচাপ কমাতে সহায়ক ছিল।


৯.হজমের জন্য ভালো:

শসা আমাদের পেটের শীতল হিসেবে কাজ করে। শসায় দ্রবণীয় ফাইবার আমাদের হজম প্রক্রিয়াকে ধীর করতে সাহায্য করে।



১০.ব্লাড সুগার কমায়:

শসা রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে পরিচিত, এইভাবে ডায়াবেটিস মেলিটাস ব্যবস্থাপনা ও প্রতিরোধে সহায়ক।



১১.উন্নত ত্বক:

শসা দারুণ সৌন্দর্য বর্ধক। তারা ত্বকে আশ্চর্যজনক প্রভাব দেখায়। শসার রস ত্বকে প্রয়োগ করলে তা নরম ও উজ্জ্বল হয়। শসার প্রদাহবিরোধী প্রভাব প্রাকৃতিকভাবে আমাদের ত্বককে হালকা করে এবং ট্যানিং কমায়। এটি বলিরেখা এবং সূক্ষ্ম রেখাও হ্রাস করে।



১২.আমাদের চোখকে শান্ত করে:

শসার টুকরোগুলো চোখের উপর প্রায় ১০ মিনিট রেখে আমাদের চোখকে শিথিল করে এবং চোখের চারপাশের ফোলাভাব কমায়।


১৩.ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়:

শসায় থাকা ফাইবার কলোরেক্টাল ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে। এছাড়াও, শসায় থাকা শর্কুরবিটাসিন ক্যান্সার বিরোধী বৈশিষ্ট্য রাখে।


১৪.চুল এবং নখের জন্য ভালো:

শসায় সিলিকা থাকে যা চুল এবং নখের যত্নের জন্য চমৎকার। এগুলি নখকে শক্তিশালী করতে এবং ভঙ্গুর হওয়া থেকে বিরত রাখতে সহায়তা করে।


১৫.খারাপ শ্বাস রোধ করে:

শসায় উপস্থিত ফাইটোকেমিক্যালস আমাদের মুখের ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে যা মুখের দুর্গন্ধ সৃষ্টি করে।



১৬. ফাইবার সমৃদ্ধ

শসা পুষ্টিকর ফাইবারের একটি ভাল উৎস হিসেবে বিবেচিত যা আপনার শরীরকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করবে। শসায় ফাইবার এবং পানির সংমিশ্রণ কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করতে সাহায্য করতে পারে এবং নিয়মিততা বৃদ্ধি করতে পারে। এই কারণেই ডায়েটিশিয়ানরা ডায়াবেটিস রোগীদের নিয়মিত এটি খাওয়ার পরামর্শ দেন, কারণ এটি অগ্ন্যাশয়কে সঠিক পরিমাণে ইনসুলিন নিঃসরণ করতে পারে, ফলে উত্পাদিত চিনি নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।


১৭. হাড়ের স্বাস্থ্য বাড়ায়

কম হাড়ের ঘনত্ব এবং হাড় ভাঙার ঝুঁকি দূর করতে শসাও প্রয়োজনীয় ক্যালসিয়ামের উৎস। আপনার ডায়েটে শসা যোগ করতে ভুলবেন না, কারণ নিয়মিত শসা খাওয়ার ফলে আপনি শক্তিশালী হাড় এবং কার্টিলেজ উপভোগ করবেন। শসা ক্যালসিয়ামের শোষণ উন্নত করতে সাহায্য করে, হাড়ের পেশীগুলির মেরামতের উন্নতি করে।



শসা খাওয়ার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

শসা খাওয়ার ফলে কিছু মানুষের মধ্যে ফুসকুড়ি এবং পেট ফাঁপা হওয়ার মতো হজমের সমস্যা হতে পারে।

কিডনির সমস্যাযুক্ত ব্যক্তিদের খুব বেশি শসা খাওয়া উচিত নয় কারণ এটি তাদের শরীরে জলের পরিমাণ এবং পটাসিয়াম বৃদ্ধি করতে পারে, যা তাদের জন্য ক্ষতিকর।

রক্ত পাতলা ব্যক্তিদের খুব বেশি শসা খাওয়া উচিত নয়, কারণ তাদের মধ্যে ভিটামিন কে রক্ত ​​জমাট বাঁধাকে আরও কঠিন করে তুলতে পারে।

শসায় অ্যালার্জিযুক্ত ব্যক্তিরা আমবাত, ফোলা এবং শ্বাস নিতে অসুবিধার মতো লক্ষণ দেখাতে পারে।














-----------

tags:

health benefits of cucumber,  benefits of cucumber,  benefits of eating cucumber,  cucumber health benefits,  cucumber benefits,  benefits of cucumber juice,  cucumber,  cucumber benefits for skin,  cucumber juice benefits,  cucumber benefits for health,  health benefits of eating cucumbers,  cucumber benefits for weight loss,  cucumber benefits for men,  benefits of eating cucumber at night,  health benefits of cucumber juice,  cucumber water benefits, শসা খাওয়ার উপকারিতা,  শসার উপকারিতা,  শসা খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা,  শসা খাওয়ার নিয়ম,  জেনে নিন শসা খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা,  শসার স্বাস্থ্য উপকারিতা,  শসা খাওয়ার উপকারিতা,  শসা খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা,  শসা খাওয়ার উপকারিতা কি,  শসা,  রাতে শসা খাওয়ার উপকারিতা,  ডায়েটে শসা খাওয়ার উপকারিতা,  প্রতিদিন শসা খাওয়ার উপকারিতা,  খালি পেটে শসা খাওয়ার উপকারিতা,  শসা খাওয়ার অপকারিতা,  শসার উপকারিতা ও অপকারিতা,  শসা খাওয়ার উপকার,  শসা খাওয়ার ১৬ স্বাস্থ্য উপকারিতা